অনলাইনে আয় ২০২০

অনলাইনে আয় ২০২০ 1
অনলাইনে আয় ২০২০ 2

অনলাইনে আয় ২০২০ সালে এখন খুব জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে। অনেকেই অনলাইন থেকে টাকা আয় করছে। অনেকে মোবাইল দিয়ে অনলাইন থেকে টাকা ইনকাম করছে। অনেকের ই প্রশ্ন থাকে মোবাইল দিয়ে অনলাইন থেকে আয় করা যায়? আমি বলি হ্যাঁ মোবাইল দিয়েও অনলাইন থেকে আয় করা যায় তবে তুলনামূলক একটু বেশি কষ্ট হয় এবং সময় ও তুলনামূলক বেশি লাগে।

অনলাইন থেকে কি সত্যি লাখ লাখ টাকা আয় করা যায়? হ্যাঁ অনলাইন থেকে লাখ লাখ টাকা ইনকাম করে এমন মানুষ বাংলাদেশ এ অনেক। তারমানে এই না যে, তুমিও এই আর্টিকেল পড়লেই অনলাইন থেকে লাখ লাখ টাকা আয় করতে পারবে।অনলাইন থেকে লাখ লাখ টাকা আয় করতে হলে তোমাকে সেই লেভেল এর অভিজ্ঞতা সম্পন্ন হতে হবে, প্রথম অবস্থায় কেও ই অনলাইন থেকে লাখ লাখ টাকা আয় করে না।

Table of Contents

অনলাইনে থেকে টাকা আয় করার সহজ উপায় অনলাইনে আয় ২০২০

অনলাইনে আয়
অনলাইনে আয়

অনেকেই অনলাইন থেকে টাকা আয় করার সহজ উপায় খুজে থাকে কিন্তু আসলে সহজ বলতে কিছুই নাই, কাজ শিখতে হয় প্রাকটিস করতে হয় তারপর কাজ করতে হয়।তুমি কাজ না শিখেই অনলাইন থেকে লাখ লাখ টাকা আয় করতে পারবে না তাই অনলাইন থেকে আয় করতে হলে তোমাকে আগে কাজ শিখতে হবে।

অনলাইনে টাকা ইনকাম আয় করার জন্য কোন কাজ সহজ?

অনেকেই অনলাইন থেকে আয় করার সহজ উপায় খুজে থাকে কিন্তু আসলে সহজ বলতে কিছুই নাই, তোমার যে কাজ ভালো লাগে যে কাজ তুমি ভালোবেসে করতে পারবা যে কাজ করলে তুমি বিরক্ত ফিল করো না তুমি সে কাজ ই শিখবে।

সকল বিষয় গুলো আগে ঘাঁটাঘাঁটি করবে তারপর তোমার যা ভালো লাগে তা শিখবে।

কি কি কাজ করে অনলাইনে টাকা আয় করা যায়?

অনলাইন থেকে অনেক কাজ করেই আয় করা যায়। এখানে কাজ প্রথমে ২ ভাগ হয়ে থাকে। এক হল নিজের কাজ নিজে করা, আরেক হল আরেকজন এর কাজ করে অনলাইন থেকে আয় করা যাকে আমরা ফ্রিলান্সিং বলি।

নিজের কাজ নিজে করে অনলাইন থেকে আয়

নিজের কাজ নিজে করে অনলাইন থেকে আয় করার অনেক উপায় আছে, গুগল অ্যাডসেন্স হল এর মাঝে জনপ্রিয়। এখন অনেকেই গুগল অ্যাডসেন্স থেকে ইনকাম করে আবার অনেকে ফেসবুক থেকেও আয় করে আবার অনেকে এফিলিয়েট মার্কেটিং করেও খুব ভালো পরিমান ইনকাম করছে।

কিভাবে গুগল অ্যাডসেন্স থেকে টাকা ইনকাম করা যায়?

গুগল অ্যাডসেন্স কি?

গুগল অ্যাডসেন্স হলো গুগল এর একটি অ্যাড নেটওয়ার্ক। যার মাধ্যমে গুগল অ্যাড পরিচালনা করে।

গুগল অ্যাডসেন্স থেকে আয় করার অনেক উপায় থাকলেও ব্লগিং আর ইউটিউবিং খুব জনপ্রিয়। তোমার যদি একটি ব্লগ সাইট থাকে তাহলে সেখানে তুমি গুগল এর বিজ্ঞাপন বসিয়ে সেখান থেকে খুব ভালো পরিমান টাকা আয় করতে পারবা। তবে এর জন্য তোমার ব্লগ সাইট কে গুগল অ্যাডসেন্স এর কিছু নিয়ম নিতি মানতে হবে। তুমি নতুন একটা ব্লগ সাইট খুলেই ইনকাম করতে পারবা না।

ব্লগ সাইট এ অ্যাডসেন্স পেতে হলে কি কি করতে হবে?

ব্লগ সাইট এ অ্যাডসেন্স পাওয়ার ধরাবাঁধা কোন নিয়ম নাই, তবে তুমি নিচের নিয়ম গুলো মেনে অ্যাডসেন্স এর জন্য আবেদন করলে আশা করি অ্যাডসেন্স পেয়ে যাবে।

১। তোমার ব্লগ সাইট এ ইউনিক কোয়ালিটি ফুল আর্টিকেল থাকতে হবে।৫০০ ওয়ার্ড এর ১০-১৫ টা আর্টিকেল থাকলে আশা করা যায় তুমি গুগল অ্যাডসেন্স পেয়ে যাবে।

২। About us, Contact Us, Privacy Policy  এই পেইজ গুলা থাকতে হবে। না থাকলে অ্যাডসেন্স পাবে না বিষয় টা এমন না তবে এই পেইজ গুলা থাকা ভালো। গুগল তোমার সাইট কে ভালো চোখে দেখবে যদি তোমার ব্লগ সাইট এ এই পেইজ গুলা থাকে।

৩। তুমি যদি blogspot.com দিয়ে ফ্রি ব্লগ সাইট খুলে থাকো তাহলে তোমাকে বলব একটা টপ লেভেল ডোমেইন অ্যাড করে নাও। ফ্রি ডোমেইন গুলায় ও অ্যাডসেন্স দেয় কিন্তু টপ লেভেল ডোমেইন অ্যাড করে নেয়াই ভালো। তোমার আখেরে মঙ্গল হবে।

টপ লেভেল ডোমেইন কি?

.com .net .org .info এই গুলাই টপ লেভেল ডোমেইন বা মাস্টার ডোমেইন

এখন তুমি আমাকে প্রশ্ন করতে পারো Blogspot নাকি WordPress কোনটা ইউজ করব?

আমি বলব যদি হাতে টাকা পয়সা না থাকে তাহলে একটা মাস্টার ডোমেইন কিনে ব্লগার এই শুরু করো পরে যখন হাতে টাকা পয়সা আসবে তখন নাহয় ওয়ার্ড প্রেস এ চলে আসবে।

৪। তোমার ব্লগ সাইট টা Search console তে অ্যাড করবে এবং সাইট ম্যাপ সাবমিট করবে । যদি কোন ইররোর থাকে তাহলে সে গুলো ফিক্স করেই অ্যাডসেন্স এর জন্য আবেদন করবে।

৫। আর তোমার ডোমেইন টা নতুন হলে ১ মাস অপেহ্মা করবে এই ১ মাস শুধু কোয়ালিটি ফুল আর্টিকেল দিতে থাকবে সাইটে। ১ মাস পর আবেদন করবে খুব তারাতারি তুমি গুগল অ্যাডসেন্স পেয়ে যাবে।

ব্লগ সাইট থেকে আরো যে যে উপায়ে আয় করা যায়

১। অ্যাডসেন্স থেকে আয়।

২। এফিলিয়েট মার্কেটিং করে আয়।

৩। জায়গা ভাড়া দিয়ে আয়।

৪। নিজের প্রোডাক্ট সেল করে আয়।

৫। নির্দিষ্ট কম্পানিকে প্রোমোট করে আয়।

৬। আরেকজনের ওয়েবসাইট প্রোমোট করে আয়।

ইউটিউব চ্যানেলে অ্যাডসেন্স পেতে হলে কি কি করতে হবে?

ইউটিউব থেকে আয়, ইউটিউব চ্যানেল এ অ্যাডসেন্স পেতে হলে তোমার ইউটিউব চ্যানেল কে নিচের শর্ত গুলো ফিলাপ করতে হবে।

১। তোমার ইউটিউব চ্যানেল এর সাবস্ক্রাইবার মিনিমাম ১০০০ হতে হবে।

২। তোমার ইউটিউব চ্যানেল লাস্ট ১২ মাসে ৪০০০ ঘন্টা ওয়াচ টাইম।

৩। তোমার ইউটিউব চ্যানেল এর ভিডিও গুলা ইউনিক হতে হবে।

এই নিয়ম গুলা মানলেই তুমি তোমার ইউটিউব চ্যানেল মনিটাইজেশন এর জন্য গুগল অ্যাডসেন্স এ আবেদন করতে পারবে। যদি সকল কিছু ঠিক ঠাক থাকে তাহলে তুমি খুব তারাতারি তোমার ইউটিউব চ্যানেল এ অ্যাডসেন্স পেয়ে যাবে এবং তোমার অনলাইন আয় শুরু হবে।

ইউটিউব চ্যানেল থেকে আরো যে যে উপায়ে আয় করা যায়

১। অ্যাডসেন্স থেকে আয়।

২। এফিলিয়েট মার্কেটিং করে আয়।

৩। ভিডিও এর মাঝে মাঝে নির্দিষ্ট প্রোডাক্ট প্রোমোট করে আয়।

৪। নিজের প্রোডাক্ট সেল করে আয়।

৫। নির্দিষ্ট কম্পানিকে প্রোমোট করে আয়।

৬। আরেকজনের ওয়েবসাইট প্রোমোট করে আয়।

ফেসবুক থেকে কিভাবে টাকা আয় করা যায়?

অনলাইনে আয় ২০২০,

ফেসবুক কি?

ফেসবুক এর যাত্রা সোশ্যাল মিডিয়া হিসেবে হলেও ২০২০ সালে দাঁড়িয় এটা এখন শুধু মাত্র সোশ্যাল মিডিয়া নয়। এটা এখন অনলাইনে আয় এর মাধ্যম। বাংলাদেশি অনেকেই শুধু ফেসবুক থেকে মাসে লাখ লাখ টাকা কামাচ্ছে।তুমি ভালোভাবে কাজ করলে তুমিও পারবে তারমানে এই না যে এই আর্টিকেল পড়লেই তুমি মাসে লাখ লাখ টাকা ইনকাম করতে পারবে। আগে কাজ শিখতে হবে তারপর কাজ করতে হবে।

গুগল অ্যাডসেন্স এর পাশাপাশি ফেসবুক থেকে আয় করাও এখন জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে।কারন ফেসবুক এর ইউজার দিন দিন বেড়েই চলছে আগামীতেও বাড়বে।

ফেসবুক থেকে অনেক উপায় এ আয় করা যায়।

ফেসবুক থেকে সে সকল উপায়ে অনলাইনে আয় করা যায়

১। Instant Article থেকে আয়।

২। video create করে আয়।

৩। ফেসবুক পেজে এফিলিয়েট মার্কেটিং করে আয়।

৪।ফেসবুক পেইজ এ যে ভিডিও আপলোড দিবে সেই ভিডিও এর মাঝে মাঝে নির্দিষ্ট প্রোডাক্ট প্রোমোট করে আয়।

৫।নিজের প্রোডাক্ট সেল করে আয়।

৬। নির্দিষ্ট কম্পানিকে প্রোমোট করে আয়।

৭।আরেকজনের ওয়েবসাইট প্রোমোট করে আয়।

৮।ফেসবুক গ্রুপ এ পেইড মেম্বারশিপ চালু করে আয়।

৯। ফেসবুক গ্রুপে এফিলিয়েট মার্কেটিং করে আয়।

১০। আরো কিছু উপায় আছে যার মাধ্যমে ফেসবুক থেকে আয় করা যায়।

Instant Article থেকে কিভাবে আয় করা যায়?

Instant Article থেকে কিভাবে আয় করা যায়,
Instant Article থেকে কিভাবে আয় করা যায়?

Instant Article থেকে কিভাবে আয় করা যায়?

Facebook Instant Article থেকে আয় করতে হলে তোমাকে Facebook Instant Article এর কিছু নিয়ম নিতি মানতে হবে।

Facebook নতুন কোন ওয়েব সাইট কে Instant article এর জন্য Approved করে না।Facebook Instant Article এর জন্য আবেদন করতে হলে তোমার ওয়েবসাইট টা পুরাতন হতে হবে, সুধু পুরাতন হলেই হবে না ফেসবুক থেকে মিনিমাম ১৫ হাজার ভিজিটর তোমার সাইট এ গেলে তুমি Facebook Instant Article এর জন্য তোমার ডোমেইন টা Claim করতে পারবে মানে তুমি Facebook Instant Article এর জন্য আবেদন করতে হবে।

Facebook Instant Article এর জন্য আবেদন করতে যা যা লাগবে :

  1. মিনিমাম ৩ মাস পুরাতন ফেসবুক পেজ কোন লাইক না থাকলেও হবে।
  2. ফেসবুক থেকে মিনিমাম ১৫ হাজার ভিজিটর গিয়েছে এমন ওয়েবসাইট।
  3. মিনিমাম ১০ টা ১০০% ইউনিক আর্টিকেল থাকতে হবে তোমার ওয়েবসাইটে।

এই গুলো হলেই তুমি Facebook Instant Article এর জন্য আবেদন করতে পারবে।

কিভাবে Facebook Instant Article এর জন্য আবেদন করবে?

এর জন্য এই আরটিকেল টা দেখো Facebook Instant Article আবেদন করার সহজ উপায়

 

ফেসবুক এ ভিডিও আপলোড করে কিভাবে টাকা আয় করা যায়?

তুমি ফেসবুক এ ভিডিও আপলোড দিয়েও খুব ভালো পরিমান টাকা আয় করতে পারবে। তবে শুধু ভিডিও আপ্লোড দিলেই টাকা আয় হবে না এর জন্য ফেসবুক এর কিছু নিয়মনীতি আছে তুমি সেগুলো ফিলাপ করলেই ফেসবুক এ ভিডিও আপ্লোড দিয়ে টাকা আয় করতে পারবে।

ফেসবুক এ ভিডিও আপলোড করে আয় করতে হলে কি কি করতে হবে?

ফেসবুক এ ভিডিও আপলোড করে আয় করতে হলে কি কি করতে হবে?,
ফেসবুক এ ভিডিও আপলোড করে আয় করতে হলে কি কি করতে হবে?

এই ছবিটা দেখলেই তুমি বুঝতে পারবা ফেসবুক এ ভিডিও আপলোড করে আয় করতে হলে কি কি করতে হবে?

ফেসবুক এ ভিডিও আপলোড করে আয় করতে হলে যা যা থাকতে হবে:

  1. তোমার ফেসবুক পেজ এ মিনিমাম ১০ হাজার ফলোয়ার থাকতে হবে।
  2. গত ৬০ দিনে তোমার ৩ মিনিট এর ভিডিও তে ৩০ হাজার ১ মিনিট ভিউস লাগবে ।
  3. আর ফেসবুক এর পলিসি গাইডলাইন মানতে হবে।

ফেসবুক এর মনিটাইজ পলিসি দেখো এখান থেকে।

এফিলিয়েট মার্কেটিং করে কিভাবে অনলাইনে আয় করা যায়?

এফিলিয়েট মার্কেটিং কি?

এফিলিয়েট মার্কেটিং এর মানে হলো কমিশন ভিত্তিক প্রোডাক্ট সেল করা। মানে তুমি একটি কম্পানির প্রোডাক্ট সেল করে দিবে সেই কম্পানি তোমাকে নির্দিষ্ট হারে কমিশন দিবে। তুমি যে কমিশন এর জন্য ওই কম্পানির প্রোডাক্ট সেল করে দিচ্ছো এটাই এফিলিয়েট মার্কেটিং। এখানে একেক কম্পানি একেক রকম কমিশন দেয় আবার সেইম কোম্পানি ও একেকরকম প্রোডাক্ট এর জন্য একেক রকম কমিশন দেয়।

এফিলিয়েট মার্কেটিং করে কিভাবে আয় করা যায়?

তোমার যদি একটি ব্লগ সাইট অথবা একটি ইউটিউব চ্যানেল থাকে তাহলে তুমি সেই এফিলিয়েট লিঙ্ক টি শেয়ার করে সেল জেনারেট করতে পারো। আর তোমার লিংক থেকে যদি কেও প্রোডাক্ট কিনে তাহলে তুমি নির্দিষ্ট হারে কমিশন পাবে।

অনেক কোম্পানি ফেসবুক পেইজ কিংবা ফেসবুক গ্রুপ থেকেও সেল করতে দেয়, মানে তুমি তোমার ফেসবুক পেইজ কিংবা ফেসবুক গ্রুপ এ তোমার এফিলিয়েট লিংক শেয়ার করে প্রোডাক্ট সেল করতে পারলে নির্দিষ্ট হারে কমিশন পাবে।

কোন কোন কোম্পানি এফিলিয়েট মার্কেটিং এর সুযোগ দেয়?

তোমার টার্গেট অডিয়েন্স যদি আমেরিকা, ইউরোপ কিংবা কানাডা হয় অথবা বিদেশী হয় তাহলে তুমি নিচের কোম্পানি গুলোর এফিলিয়েট মার্কেটিং করতে পার।

১। amazon.com

২। clickbank.com

৩। ebay.com

আর তোমার টার্গেট অডিয়েন্স যদি বাংলাদেশি হয় তাহলে তুমি নিচের কোম্পানি গুলোর এফিলিয়েট করতে পারো।

১। bdshop.com/affiliate

২। shopup.com.bd

আরেকজন এর কাজ করে অনলাইন থেকে আয় / ফ্রিলান্সিং করে আয়

আরেকজন এর কাজ করে অনলাইন থেকে আয় / ফ্রিলান্সিং করে আয় করতে হলে তোমাকে প্রথমে যে কোন একটা কাজ ভালোভাবে শিখতে হবে। কি কাজ শিখবে তা আমি উপরে বলেছি।

ফ্রিলান্সিং করে আয় করতে হলে তোমাকে ফ্রিলাংসিং মার্কেট প্লেস এ একাউন্ট খুলতে হবে তবে কাজ না শিখে শুধু শুধু একাউন্ট খুলে মার্কেট প্লেস টা নষ্ট করবা না প্লিজ। আগে কাজ শিখো তারপর একাউন্ট খুলো।

ফ্রিলান্সিং সাইট গুলোতে কি কি কাজ পাওয়া যায়?

ডাটা এন্ট্রি থেকে শুরু করে অনলাইন এর সকল কাজ ই ফ্রিলান্সিং মার্কেট প্লেস এ পাওয়া যায়।আমি নিচে কিছু পপুলার ক্যাটাগরির নাম দিচ্ছি দেখে নাও।

১। Web, Mobile & Software Dev

২।IT & Networking

৩।Data Science & Analytics

৪।Engineering & Architecture

৫।Design & Creative

৬।Writing

৭।Translation

৮।Legal

৯।Admin Support

১০।Sales & Marketing

এছাড়াও আরো অনেক কাজ পাওয়া যায় তুমি একটু রিসার্চ করলেই পেয়ে যাবে।

আচ্ছা তুমি কি ঘরে বসে বিকাশ একাউন্ট খুলতে পারো? যদি না পারো তাহলে দেখে নাও ঘরে বসে বিকাশ একাউন্ট খুলার সহজ উপায়

এছাড়াও অনেক কাজ আছে তুমি নিজেই দেখে নিতে পারো। আমি নিচে পপুলার সাইট গুলোর লিংক দিচ্ছ যেই সাইট গুলো থেকে কাজ পাওয়া যায়/ সার্ভিস সেল করা যায়।

অনলাইনে আয় করার সাইট

১। upwork.com

২। freelancer.com

৩। fiverr.com

৪। peopleperhour.com

৫। 99designs.com

৬। guru.com

এছাড়াও আরো অনেক সাইট আছে তুমি একটু রিসার্চ করলেই পেয়ে যাবে।

আচ্ছা তুমি কি মধু পরিক্ষা করতে পারো? মানে তুমি কি জানো কোন মধু ১০০% খাঁটি? যদি না জানো তাহলে জেনে নাও ১০০% খাঁটি মধু চেনার উপায়

আশা করি তুমি খুব ভালোভাবেই সকল কিছু বুঝেছো কারন আমি চেষ্টা করেছি সকল কিছু সহজ ভাবে বুঝিয়ে দেয়ার যা সবাই দেয় না। তারপর ও যদি কোথায় বুঝতে প্রব্লেম হয় অথবা কোন প্রশ্ন থাকে নিচের কমেন্ট বক্স এ কমেন্ট করো।আমি উত্তর দিব ইন শা আল্লাহ।

সার্চগুলি অনলাইনে আয়-এর সাথে জড়িত

অনলাইনে আয় ২০১৯

মোবাইলে অনলাইনে আয় ২০১৯

অনলাইনে আয় বিকাশে পেমেন্ট ২০১৮

অনলাইনে আয় বিকাশে পেমেন্ট 2019

অনলাইনে আয় বিকাশে পেমেন্ট 2018

অনলাইনে আয় বিকাশে পেমেন্ট ২০১

মোবাইলে অনলাইনে আয় ২০১৮

12 thoughts on “অনলাইনে আয় ২০২০

  1. ভাই, আমার একটু হেল্প লাগবে। আপনার ফেসবুক আইডিতে মেসেজ দিয়েছি একটু দেখুন প্লিজ।
    আমার আইডির নাম Raju Hossain.

    1. ধন্যবাদ আর্টিকেল টি মনোযোগ সহকারে পড়ার জন্য। ভালো লাগলে আপনার বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন।আর ফেসবুক এর মেসেজ এর রিপ্লাই দিচ্ছি।

  2. Ami west Bengal theke vai jan.ami online a earning korte chai.kintu kichu bujte parchi na.tai apni Jodi amar mentor hoten.thole khu. Upokrito hotam.allah hafij.

    1. আপনি কি এই আর্টিকেল টা পড়েছেন? পরে থাকলে তো হালকা কিছু হলেও বুঝার কথা। আপনি আমাকে ফেসবুক এ একটা মেসেজ দিন আর এই আর্টিকেল এর কোথায় বুঝেন নাই সেটা এখানেই কমেন্ট করে জানান অন্যদের উপকার হবে।

      আমার ফেসবুক আইডি লিংক https://facebook.com/mohammadrakib00

  3. স্যার আপনার এই পোস্ট পড়ার পর। আমার সমস্ত কনফিউশোন দুর হয়ে গেছে।আপনার সাইট ভিজিট করে আমি খুব উপকৃত হয়েছি।আপনাকে অনেক অনেক ধন্যবাদ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *